Monday, August 31, 2015

বিট কয়েন আয়ের অন্তিম পর্ব! জেনে নিন বিট কয়েন আয়ের সেরা কিছু সাতোশি সাইট সম্পর্কে, যেখানে বিট কয়েন আয়কে অনেকাংশে বৃদ্ধি করতে পারবেন!!

সবাইকে সালাম ও শুভেচ্ছা। আশা করি, সম্মনীত ভিজিটর বন্ধুরা আপনারা সবাই ভাল আছেন। আজকের টিউনটি করব বিট কয়েন সাইটের আরো কিছু লিগ্যাল সাইট নিয়ে যাহা টিউনের শিরোনামেই উল্লেখ করেছি। আসলে প্রায় ৩ মাস পূর্বে আমি বিট কয়েন আয়ের সেরা সাইট এর সাখে পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলাম। অতপর আরো কিছু আয় বৃদ্ধি করার জন্য বেশ কিছু ইনভেস্টমেন্ট সাইটের সাথে পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলাম।যাইহোক বিট কয়েন আয় নিয়ে ভিজিটর বন্ধুদের কাছ থেকে বেশ ভাল সাড়া পাই।



অতপর তাদের অনেকেই আমাকে বিট কয়েন ইনকামের আরো কিছু সাইটের ঠিকানা দিতে অনুরোধ করেছিলেন। অবশ্য প্রতিত্তরে সবাইকে আশ্বস্ত করেছিলাম একটু বিলম্ব হলেও তা আমার ব্লগ সাইটে আপডেট করে দিব। সেই প্রেক্ষিতে অাজকের এই টিউন। সত্যি কথা বলতে কোন সাইট ভিজিটরদের পরিচয় করানোর পূর্বে নিজে কাজ করে, পরীক্ষন, পর্যবেক্ষণ, পেমেন্ট পাবার পর টিউন পাবলিশ করি। কারন ব্যক্তিগতভাবে অযথা ভূইফোড় টিউন করে ভিজিটর বন্ধুদের হয়রানি করা আমার কাজ নই। অনেক বক বক করা হল এবার টিউনের মূল কাজের অংশে যাচ্ছি। আপনি বিট কয়েনের যে সাইটে কাজ করুন না কেন আপনাকে একটি বিট কয়েন ওয়ালেট এড্রেস লাগবে যেখানে যাবতীয় বিট কয়েন সাইটের কাজ তথা লগইন, লেনদেন করা, পেমেন্ট পাওয়া বিষয়ে সাহায্য করবে। এখানে বিট কয়েন ওয়ালেট বুঝাতে চেয়েছি মূলত কয়েন বেইজ সাইটের ঠিকানা। আসলে যারা বিট কয়েন সাইটে কাজ করছেন তাদের নতুন করে কয়েন বেইজ সাইটের একাউন্ট করার প্রয়োজন নাই। তথাপি যারা নতুন তাদের একাউন্ট ক্রিয়েট করতে হবে। একাউন্ট ক্রিয়েট করার জন্য অনুসরন করুন এইলিঙ্কে

বিট কয়েন আয়ের নতুন সাইট:

নতুন সাইটে কাজ করার পূর্বে আপনার বিট কয়েন এড্রেস তথা কয়েন বেইজ সাইটের ৩৪ বর্ণের ওয়ালেট নোট প্যাডে কপি করে নিন। কারন এটি নিম্নোক্ত সাইটে কাজ করতে কিংবা রেজি: করার সময় পেষ্ট করতে হবে।

1. Goldsday

আসলে অনেকসাইট আছেযারা আপনাকেতাদের সাইটেরঅ্যাড দেখারবিনিময়ে আপনাকেবিটকয়েন দিয়েথাকে। এইসবসাইটে গিয়েআপনার বিটকয়েনঅ্যাড্রেস দিয়ে ক্যাপচা পূরণের মাধ্যমেআপনি খুবসহজেই বিটকয়েনআয় করতেপারেন। আমিএখন আমারদেখা সবচেয়েনির্ভরযোগ্য কিছু সাইটের কথা এখানেআলোচনা করবো।
প্রথমেই বলতে হয় গোল্ডস-ডে সাইটটি সম্পর্কে, প্রথমে সাইটটিওপেন করুন অথবা নিচের চিত্রে ক্লিক করুন


স্পিন শেষ হলে ক্যাপচা পূরণ করে ক্লেইম করলেই আপনার অ্যাকাউন্টে সাথে সাথেই বিটকয়েন জমা হয়ে যাবে। একবার বিটকয়েন পাওয়ার ১০মিনিট পর আবার স্পিন করে বিটকয়েন পাওয়া যাবে।


2. Starbits 

কাজের প্রসেস কিন্তু ১ নং সাইটের মতই। এবং বাকি যে সাইট গুলোর লিংক দিব তার কাজ হবুহু একই। এই ধরনের স্পিন করে বিটকয়েন পাওয়ার অন্য একটি সাইট হলো স্টারসবিট  

  কাজের চিত্র:

 রেজি: করতে ক্লিক করুন এখানে কিংবা নিচের চিত্রে
 
  রেজি: করতে ক্লিক করুন এখানে কিংবা নিচের চিত্রে
 
করতে ক্লিক করুন এখানে

করতে ক্লিক করুন এখানে

  রেজি: করতে ক্লিক করুন এখানে কিংবা নিচের চিত্রে

 8. Millionsatoshi রেজি: করতে ক্লিক করুন এখানে 

9. Spinandwin রেজি: করতে ক্লিক করুন এখানে

 10.Surprizesরেজি: করতে ক্লিক করুন এখানে

কাজ করার কৌশল এবং সাইটগুলোর বৈশিষ্ট সমূুহ

১। আসলে একাউন্ট ওপন করাটা তেমন কষ্টকর নই। শুধুমাত্র বিট কয়েন এড্রেসটা ইনপুট করলেই হলো। এরপর ক্লাইম > নেক্সট করলেই বাকি কাজটুকু করতে পারবেন।
২। এই সকল সাইটে মূলত সাতোশি হিসাবে জমা হয়। যেখানে বিভিন্ন সাইট প্রায় প্রতি ১০ মিনিট কিংবা ৫ মিনিট কিংবা ৩০ মিনিটে ১০০ সাতোশি থেকে ১০০০০ সাতোশি পর্যন্ত পে করে থাকে।
৩। কোন কাজ না করলেও একাউন্ট ডিলেট কিংবা ডিজাবল হবার সম্ভাবনা নাই।
৪। প্রতিনিয়ত কাজের সাথে রেফারেলের মাধ্যমে কিছুটা আয় বৃদ্ধি করতে পারবেন। সেই হিসাবে আপনার সাইটের লিংকগুলো বিভিন্ন ব্লগ সাইট, সোসাল সাইটে ফ্যানারদের সাথে শেয়ার করতে পারেন।
সকল সাইটের কাজ শুধুমাত্র ১ টি সাইটের মাধ্যমে লগইন করে বিটকয়েন/সাতোশি আয় এবং উইথড্র করুন 
অনেকেই অভিযোগ করবেন এতগুলো সাইটের লিংকে কিভাবে কাজ করব কিংবা মনে রাখব? হ্যা বন্ধুরা দুশ্চিন্তার কারন নাই। এবার এমন একটি সাইটের লিংক দিব যেখানে সাইনআপ করলেই উপরোক্ত সকল সাইটের লিংক পেয়ে যাবেন। এমনকি এই সকল সাইটের ইনকম সাতোশি সবই উক্ত সাইটে যাবে এবং সেখান হইতে উইথড্র করতে পারবেন। মনে করি উপরোক্ত সকল সাইটে অাপনি রেজি: করেছেন।
তাহলে এবার রেজি: করুন এখানে ইপে.ইনফো
১। এরপর cheek your Wallet এ-ক্লিক করুন> নিম্নরুপ চিত্র আসবে > ইউজার নেইম হিসাবে একটি নাম সেট করুন কিংবা বিট কয়েন এড্রেসটা ইনপুট করুন (অবশ্য পরবর্তীতে ড্যাশবোর্ডে লগইন করে ইউজার নেইম সেট করতে পারবেন)> অতপর পাসওয়ার্ড সেট করে লগইন করুন।




 ২। নিম্নরুপ ড্যাশবোর্ড আসবে সেখানে বাম প্যানেল দেখুন।অর্থাত যাবতীয় বিট কয়েন সাইটের কাজ করা, প্রফাইল সাজানো, সাতোশি উথড্র করা, ডিপোজিত করা, উইথড্র করা সহ বিটকো ইন সাইটের মত গেম, লটারী খেলা সবই করা যাবে। ২/১ বার ঘাটাঘাটি করলেই বুঝতে পারবেন।
 কিভাবে উপরোক্ত সাইটগুলোর কাজ এক সাথে করবেন?
মনে করি আপনি ইবে সাইটের ড্যাশবোর্ডে আছেন সেখানের বাম পাশের সাইডবার হইতে Fee BTC তে ক্লিক করুন> সেখানেই যাবতীয় সাইটের লিংক পেয়ে যাবেন > অতপর সেই সব সাইটের লিংকে ভিজিট করলেই কাজগুলো করতে পারবেন। এখানে মূলত ২০ টি সাইটের লিংক পাইবেন। উল্লেখ্য আপনি উপরোক্ত সাইট হতে যে সাতোশি আয় করবেন তা সবই এই ইবে সাইটে জমা হবে।

আপনার প্রতিদিনের আয় কত হলো তা ড্যাশবোর্ড এবং ট্রানজেকশন মেনু হতেই দেখতে পারবেন।
 আশা করি উপরোক্ত আলোচনা হইতে বিষয় গুলো বুঝতে পেরেছেন। হ্যা আপনাকে আর কষ্ট করে অতগুলো সাইটের ঠিকানা মনে রাখা লাগবেনা। বিশেষত ইবে সাইটে প্রবেশ করলেই কেল্লাফতে! এখানে প্রতিটি সাইটে কাজ করার প্রয়োজন মনে করিনা, তারপরেও আপনার আগ্রহ। এখানে যে সাইটগুলোর মিনিট/ঘন্টা প্রতি সাতোশি বেশী সেখানে কাজ করার চেষ্টা করবেন।
উইথড্র করার নিয়ম:
অাপনি যে সাইটেই কাজ করুন না কেন সকল বিটিসি/সাতোশি ইবে সাইটে জমা হবে। এখানে সর্বনিম্ন 5865 Satoshis হলেই আপনার কয়েনবেইজ সাইটে উইথড্র করতে পারবেন। এই জন্য আপনার প্রফাইলে বিট কয়েন এড্রেসটি সেট করে দিবেন।তাছাড়া আপনি নিজেই সেট করে দিতে অটোমেটিক অপশনটি ফলে প্রতি সপ্তাহে/মাসে 5865 সাতোশি হলেই আপনার বিটকয়েন একাউন্টে ডিপোজিত হয়ে যাবে।

আমার পেমেন্ট প্রুফের প্রমাণ:

যেহেতু নিজেই পর্যবেক্ষণ এবং পরীক্ষণ এবং পেমেন্ট পাওয়ার পর এই টিউনটি করছি। অাসলে এখানে যতটা বেশী সময় দেওয়া যাবে ততটা বেশী ইনকাম সাতোশি অর্জন করা যাবে। ফলে দেখা যাবে কেউ উইথড্র করতে পারবে ৩ দিনের মাথাতে কিংবা কেউ ১৫ দিনের মধ্য। অনেকের আবার তাও হবে না। যাইহোক কাজের প্রমাণ পাওয়ার জন্য অামি এখানে বেশ কিছুটা সময় দিয়েছিলাম প্রায় ৫ দিনের মাথাতে ৩ ডলার মত উথড্র করতে পেরেছি। আমার পেমেন্টের প্রমাণ চিত্র:

শেষ কথা:

 টিউনের একেবারে শেষ অংশে। অবশ্য সংক্ষেপে আলোচনা করলে টিউন শেষ করতে পারতাম। কিন্তু যারা নবীন, নিয়মিত ইন্টারনেটে সময় দেন, বাট ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে বুঝেন না, অথচ মামুলি কিছু ইনকাম করার শখ মূলত তাদের কথা বিবেচনা করেই বুঝানোর সুবিধার্থে এত বিস্তারিত আলোচনা করতে হল। আসলে বিট কয়েন আয় সম্পর্কে অামাকে টিটিতে বেশ কয়েকটি টিউন করতে হয়েছে। সেই ধারাবাহিকতা হিসাবে আজ এটা অন্তিম পর্ব। তথাপি প্রাণপ্রিয় টিটিতে বিট কয়েন বিষয়ে পরবর্তীতে আমার কোন টিউন করার ইচ্ছা নাই। অতপর আমার কাছে মনা হয় না এর পরে কোন টিউন করতে হবে? কারন, বিট কয়েন আয়, ইনভেস্টমেন্ট সহ বিগত টিউনে যা আলোচনা করেছিলাম তাই যথেষ্ট। তথাপি বিট কয়েন সম্পর্কে টিউন করাটাও বোধ হয় টিটির টার্মস বিরোধী। আমি পুনরায় রিপিট করছি এই টিউন গুলোর একটা উদ্দেশ্য ছিল যারা ইন্টারনেটের এখনো আয় সম্পর্কে জানেন না, ফ্রিল্যান্স করেন না কিন্তু ইন্টারনেটে সময় দেন মুলত তাদের কিছুটা জানান দেওয়ার।



কিন্তু এর মানে এই নই যে, আমি বিট কয়েন সাইটে সর্বদা কাজ করার জন্য প্রমেট করছি?? আমি পূর্বের টিউন সহ অন্তিম টিউনে আবারো বলছি আপনি এই সকল কাজ করার পাশাপাশি ফ্রিল্যান্স শেখার চেষ্টা করুন। টিটি সহ বিভিন্ন ব্লগ সাইটে সার্চ করলেই অনেক টিউটোরিয়াল পাবেন অপরদিকে বাজারে টিউটোরিয়াল ভিডিও, প্রশিক্ষণ সেন্টার, এবং সহায়িকা বইয়ের তো অভাব নাই। আমি কিন্তু এক সময় পিটিসি সহ এই সকল সাইটে কাজ করতাম। অতপর যখন ব্লগ সাইট ও ফ্রিল্যান্স সাইটে ছোট-খাট কাজ করাটা শুরু করলাম, তখন আর এই সব সাইট ভাল না লাগার কারনে রিজেক্ট করলাম। ১০০% গ্যারান্টি আপনি যখন ফ্রিল্যান্স সাইটের প্রেমে পড়ে যাবেন তখন আপনার কাছেও এই গুলো মামুলি মনে হবে। সুতরাং আপনার যখনই সময় হবে একটু করে ফ্রিল্যান্স জানার ও শেখার চেষ্টা করুন। উদাহরন: আমি কিন্তু বর্তমানে এখনো ওয়েব ডেভেলপিং ও ওয়ার্ডপ্রেস সাইটের কাজ গুলো শিখছি!! So, অনেক কথা হল। সবাই ভাল থাকবেন, পাশের মানুষটিকে ভাল রাখবেন।

অাপডেট নোটিস: ইনশাআল্লাহ পরবর্তীতে ফ্রিল্যান্স সাইট সম্পর্কে ধারাবাহিক পর্ব হিসাবে ওডেস্ক (বর্তমানে আপওয়ার্ক) নিয়ে আমার টিউন শুরু করার ইচ্ছা আছে।


Previous Post
Next Post

0 comments: Post Yours! Read Comment Policy ▼
লক্ষ্য করুনঃ
পোষ্টের সাথে সম্পৃক্ত নয় এমন কোন কমেন্ট করা যাবে না। কোন কারণ ব্যতীত আপনার ব্লগের লিংক শেয়ার করতে যাবেন না। সবসময় গঠনমূলক মন্তব্য প্রদানের চেষ্টা করবেন। আমরা সবার মতামত সমানভাবে মূল্যায়ন করি এবং যথাসময়ে প্রতি উত্তর দেয়ার চেষ্টা করি।

Post a Comment

 
Copyright © বিডি.পয়সা ক্লিক,নিবন্ধিত ও সংরক্ষিত. মডিফাইঃ পিসি টীম, সার্ভার হোস্টেডঃ গুগল সার্ভিস