Friday, May 22, 2015

জাল এন্টিভাইরাস কি? কখনো জাল এন্টিভাইরাসের কবলে পড়েছেন এবং অজান্তে জাল এন্টিভাইরাস আপনার পিসিতে বড় ধরনের ক্ষতি করছেনা তো? জাল এন্টিভাইরাস নিয়ে মেগা টিউন!!

السلام عليكم আসসালামু আলাইকুম।
সুপ্রিয় টেকটিউনস কমিউনিটি সাইটের সবাইকে সালাম ও শুভেচ্ছা। অাজকের প্রকাশিত ২য় তম টিউনে আলোচনা করব জাল এন্টিভাইরাস  সম্পর্কে যাহা টিউনের শিরোনামে জুড়ে দিয়েছি। সুতরাং বকবক না করে এবার টিউনের মূল আলোচনাতে যাচ্ছি-
কম্পিউটার ছাড়া বর্তমানে জীবন কল্পনা অসম্ভব কিন্তু কম্পিউটারব্যবহার কারীদের সবচেয়ে যে সমস্যা বেশি পোহাতে হয় তা হলো ভাইরাস সমস্যা। ইন্টারনেট ব্যবহার করলে এ সমস্যা সবচেয়ে বেশি দেখা যায়। এর সাথে বর্তমানে যুক্ত হয়েছে আবার ফেক বা নকল এন্টিভাইরাস এবং জাল এন্টি-স্পাইওয়্যার। যারা নতুন কম্পিউটার ব্যবহার করেন তরা অনেকেই এগুলোকে ভাইরাস  হিসাবে ধরে নেন।

জাল এন্টিভাইরাস কি?


ভাই, আসল এন্টিভাইরাসের কথা শুনেছি! তাই বলে কি জাল এন্টিভাইরাস আছে? হ্যা ভাই বিষয়টি ভাবার কথা। আশ্চর্য হলেও সত্যিযে জাল এন্টিভাইরাস আছে। হয়ত আমরা অনেকেই জানিনা। জাল এন্টিভাইরাস হল মূলত আসল এন্টিভাইরাস প্রোগ্রামের নামের সাথে কিছুটা মিল রেখে কিংবা ইন্টারফেস অনুসারে কৃত্রিমভাবে অন্য একটি প্রোগ্রাম তৈরি করে তা বিভিন্ন মধ্যমে শেয়ার করা হয়ে থাকে যেমনঃ ইন্টারনেট, সামাজিক প্রফাইল সমূহ, ডিভাইস সমূহ ইত্যাদি। এটিও একটি ক্ষতিকর প্রোগ্রাম। মূলত আমরা যারা নেটে ফ্রি এন্টিভাইরাস ব্যবহার করার সুযোগ নিই এবং সার্চ করি। সেখানে এই সুবর্ন সুযোগে  সাচিং হিসাবে জাল এন্টিভাইরাসের তালিকা চলে আসে। ফলে অনেকেই সেইগুলোর প্রতি আশক্ত হয়ে কিছু না বুঝার আগেই পিসিতে ডাউনলোড করে ইনস্টল করে ফেলি। ফলে যা হবার তা হয়! আরেকটি মজার বিষয় হল যখন ফেইক এন্টিভাইরাস পিসিতে ডাউনলোডের জন্য প্রস্তুতি গ্রহন করা হয় তখন সেই সব সাইটে আসল এন্টিভাইরাস সাইটের মত এত কার্যকারিতা, কাষ্টমার রিভিউ, অ্যাওয়ার্ড এর বিষয়টি উল্লেখ থাকে। ফলে পিসি ইউজারেরা আসল ভেবে বসেন। সত্যি কথা বলতে কি তাদের সাইটে যত তথ্যাদি দেওয়া থাকেই তা সবগুলোই ফেক!

জাল এন্টিভাইরাস কারা তৈরি করেন এবং কিভাবে এটি পিসিতে ইনস্টল হয়ে থাকে?


ইতিপূর্বে আপনার অনেকেই অবগত যে, পিসিতে যে গুলো ক্ষতিকর প্রোগ্রাম তথা ভাইরাস কিংবা স্পাইওয়ার পাওয়া যায় তার সবগুলোই হ্যাকার/প্রোগ্রামারগণ তৈরি করে থাকেন। এই গুলো মানব দেহের ভাইরাস নই যে, এমনি এমনিই তৈরি হবে। কারন পিসির ভাইরাসগুলো এমনিভাবে তৈরি সম্ভব নই, ক্ষতিকর প্রোগ্রাম বানিয়ে করা হয়। মূলত হ্যাকার/প্রোগ্রামারগণ ক্ষতি সাধনের উদ্দেশ্য ভাইরাস গুলোর মতই এই সব নকল এন্টিভাইরাস তৈরি করে থাকেন। ভাইরাস/স্পাইওয়ার ছড়ানোর পাশাপাশি আরেকটি তাদের মরনাস্ত্র হচ্ছে এই ফেইক এন্টিভাইরাস। ফেইক এন্টিভাইরাস সাইটের পাশাপাশি তারা ইমেইল, সোস্যাল সাইটে শেয়ারের মাধ্যমে এইগুলো সচল করেন। বিশেষত পাইরেসি সাইট, পন্য সাইট, মুভি সাইট গুলো তারা ফেইক এন্টিভাইরাসের লিংক গুলো শেয়ার করে থাকেন বিভিন্ন লোভনীয় অফারের মাধ্যমে।


অপরদিকে বন্ধু বান্ধব মহল হইতে আপনি জাল এন্টিভাইরাসের খপ্পড়ে পড়তে পারেন। উদাহরন আপনার এক বন্ধু পেন ড্রাইভে জাল এন্টিভাইরাস সংগ্রহ করল। অতপর আপনাকে বললো দোস্ত! তোর পিসিতে তো কোন ভাল এন্টি ভাইরাস নাই, আমি একটি ভাল ফ্রি এন্টিভাইরাস নামিয়েছি ও ব্যবহার করছি! ফাটাফাটি কাজ হচ্ছে!! তুই ব্যবহার করে দ্যাখ!! যাইহোক মজার বিষয় হচ্ছে আপনার বন্ধুটিও জানেন যে নিজে জাল এন্টিভাইরাস ব্যবহার করছেন তথাপি আপনি নিজেও অবগত নন। সুতরাং কোন প্রোগ্রাম ব্যবহার করার পূর্বে বিষয়টি জেনে রাখা ভাল।

জাল এন্টিভাইরাস/স্পাইওয়্যার ব্যবহারে আপনার পিসিতে যে সব ক্ষতির কারন হতে পারে


হ্যা ভাইরাসের মতই জাল এন্টিভাইরাসের ক্ষতি রয়েছে। যেমনঃ জাল এন্টিভাইরাস ব্যবহারের কারনে অাপনার পিসিতে ভাইরাস পোষন করছেন। যখন নেট কানেকশন দ্বারা বিভিন্ন কাজ করছেন সেখানে হ্যাকিং, ফিশিং ও স্প্যামের  শিকার হতে পারেন। তাছাড়া আপনার যাবতীয় তথ্যদি হ্যাক হবার সম্ভবনা থেকে যায়। তথাপি পিসিতে যাবতীয় ড্রাইভে ভাইরাস এর সংক্রমন ঘটতে থাকে। এক সময় দেখা যাবে যে, পুরো ডাটা ফেইল্যুর কিংবা উইন্ডোজ ক্রাশ হয়ে হার্ডডিস্কের যাবতীয় তথ্যাদি গায়েব হয়ে যাওয়াটাও অস্বাভাবিক কিছু নই। অাপনি হয়ত ভাবছেন ফ্রি হিসাবে এন্টিভাইরাসটি কাজ ভাল করছে বলে মনে হচ্ছে কিন্তু জাল এন্টিভাইরাস ধীরে ধীরে আপনার পিসিকে ধবংসের দিকে ঠেলে দিচ্ছে। আসল কথা হল জাল এন্টিভাইরাসকে মূলত ক্ষতিকর ভাইরাস প্রোগ্রামই বলতে পারেন। মূলত মুখোশ পরে নাম সেজেছে এন্টিভাইরাস।

জাল এন্টিভাইরাস ও স্পাইওয়্যারের তালিকা নিম্নরুপ

ইদানিং কম্পিউটার ব্যবহারকারীদের প্রধান সমস্যা হচ্ছে ভাইরাস। ইন্টারনেট ব্যবহার করলে এই সমস্যাটা আরো বেশী হয়। আর এর সাথে যুক্ত হয়েছে ফেক বা জাল এন্টি-ভাইরাস এবং জাল এন্টি-স্পাইওয়্যার। নতুন ব্যবহারকারীরা এগুলোকে ভাইরাস মনে করে। এমনই কিছু জাল এন্টি-ভাইরাস এবং জাল এন্টি-স্পাইওয়্যারের নাম হচ্ছে-
iON Internet Security
Smart Security
PC Defender Plus
Windows Proprietary Advisor
Windows Smart Warden
Home Malware Cleaner
Strong Malware Defender
AV Security 2012
Data Recovery
Wolfram Antivirus
Security Protection
Windows Antivirus 2011
Mega Antivirus 2012
AVG Antivirus 2011
PC Security 2011
ThinkPoint
ThinkSmart
Antivirus 8
 

Security Tool
My Security Shield
Antivirus 7
Antivirus GT
Defense Center
Protection Center
Sysinternals Antivirus
Security Master AV
CleanUp Antivirus
Security Toolbar
Digital Protection
XP Smart Security 2010
Antivirus Suite
Vista Security Tool 2010
Total XP Security
Security Central
Security Antivirus
Total PC Defender 2010
Vista Antivirus Pro 2010
Your PC Protector
Vista Internet Security 2010
XP Guardian
Vista Guardian 2010
Antivirus Soft
XP Internet Security 2010
Antivir 2010
Live PC Care
Malware Defense
Internet Security 2010
Desktop Defender 2010
Antivirus Live
Personal Security
Cyber Security
Alpha Antivirus
Windows Enterprise Suite
Security Center
Control Center
Braviax
Windows Police Pro
Antivirus Pro 2010


PC Antispyware 2010
FraudTool.MalwareProtector.d
Winshield2009.com
Green AV
Windows Protection Suite
Total Security 2009
Windows System Suite
Antivirus BEST
System Security
Personal Antivirus
System Security 2009
Malware Doctor
Antivirus System Pro
WinPC Defender
Anti-Virus-1
Spyware Guard 2008
System Guard 2009
Antivirus 2009
Antivirus 2010
Antivirus Pro 2009
Antivirus 360
MS Antispyware 2009
IGuardPC or I Guard PC
Additional Guard
অারো কিছু আছে। কম্পিউটার বিশেষজ্ঞদের মতে প্রতিদিন কমপক্ষে ৩ টি করে জাল এন্টিভাইরাস তৈরি হচ্ছে। বেশ কয়েক বছর পূর্বে পত্রিকাতে দেখেছিলাম জাল এন্টিভাইরাস এর বিরুদ্ধে বিভিন্ন আসল এন্টিভাইরাস কোম্পানী গুলো প্রতিরোধ ব্যবস্থার জন্য টীম গঠন করেছিল।

 কিভাবে বুঝবেন আপনার পিসিতে জাল এন্টিভাইরাস বাসা বেঁধেছে?


হ্যা আসলে এটি পরীক্ষণ করা ও বুঝাটা অনেকটা কষ্টের ব্যাপার। কারন পিসিতে কোন ভাইরাস/প্রোগ্রাম থাকলে অস্বাভাবিক আচরন করে। সেখানে জাল এন্টিভাইরাস এর বিপরীত। তাই বলে ভাববেন না যে, জাল এন্টিভাইরাস আপনার বন্ধু। এরা নিরব ঘাতক, পিসি স্বাভাবিক চলবে, স্ক্যান করবে, ফেইক ফিডব্যাক হিসাবে পজেটিভ ফলাফল দিবে ফলে মনে হবে আসল এন্টিভাইরাসের মতই কাজ করছে। কিন্তু যখন সমস্যা হবে তখন বোধ হয় আম-বস্তাও যাবে!! যাইহোক উপরোক্ত তালিকা অনুযায়ী যদি আপনার পিসিতে জাল এন্টিভাইরাস ইনস্টল করা থাকে তাহলে সেটি আনইনস্টল করাটাও শ্রেয়। এবং ইন্টলকৃত কোন অজানা/অপরিচিত প্রোগ্রাম থেকে থাকে কিন্তু আপনি এর কার্যকারিতা জানেন না  তাহলে পরীক্ষনের পর আনইনস্টল করতে পারেন।

প্রতিকারের উপায় সমূহ

পূবেই বলেছি উপরোক্ত তালিকা অনুযায়ী যদি আপনার পিসিতে জাল এন্টিভাইরাস ইনস্টল করা থাকে তাহলে সেটি আনইনস্টল করাটাও শ্রেয়। এবং ইন্টলকৃত কোন অজানা/অপরিচিত প্রোগ্রাম থেকে থাকে তা আনইনস্টল করাটাই শ্রেয়। অপরদিকে যারা বিভিন্ন কোম্পানীর লিগ্যাল ফ্রি এন্টিভাইরাস ব্যবহার করে থাকেন যেমন AVG, Avira, Avast, Panda সেখানেও অগোচরে জাল এন্টিভাইরাস ইনস্টল হয়ে যেতে পারে।  অনেকেই বলবেন ব্রাদার! Avast লেটেস্ট ফ্রিভার্সন এন্টিভাইরাস ব্যবহার করছি তাহলেও কি পিসিতে জাল এন্টিভাইরাস ইনস্টল সম্ভব?



হ্যা বর্তমানে হ্যাকার সম্প্রদায় এমনভাবে জাল এন্টিভাইরাস ব্যবহার করছে যেখানে ফ্রি এন্টিভাইরাসকে ফাঁকি দিতে সক্ষম। কেননা ফ্রি ও পেইড এর দুটোই অর্থ বোঝেন। সেখানে ফ্রি হিসাবে এন্টিভাইরাস কোম্পানীগুলো কেনই বা আপনার পিসির নিরাপত্তার এত দ্বায়িত্ব নিবে! তাছাড়া ফ্রি এন্টিভাইরাস কখনো ফায়ারওয়াল কিংবা ইন্টারনেটের প্রটেকশন হিসাবে কাজ করেনা। শুধুমাত্র ভাইরাস ডিটেকশনের কাজ করে থাকে। সুতরাং বুঝতেই পারছেন ফাঁকির কত অবস্থা। বুদ্ধিমানের কাজ হল একটু কষ্টকর হলেও লিগ্যাল যে কোন কোম্পানীর ইন্টারনেট সিকিউরিটি হিসাবে পিসিতে ব্যবহার করা। মূলত যাদের পিসিতে প্রটেকশন হিসাবে ইন্টারনেট সিকিউরিটি ব্যবহার করছেন তারা ৯৯% হলেও জাল এন্টিভাইরাস ব্যবহার হতে নিরাপদ থাকবেন। ইন্টারনেট সিকিউরিটি হিসাবে আপনারা Eset smart security, Avira Internet security, Kaspersky Internet security, Panda Internet security, Norton Internet security হইতে যে কোন একটি প্রডাক্ট ইউজ করতে পারেন। বাংলাদেশী টাকাতে এই গুলোর মূল্য হবে ১ ইউজার পিসির জন্য ৫০০৳-১১০০৳।

সারকথা

উপরোক্ত আলোচনা হইতে জাল এন্টিভাইরাস এবং এর প্রতিরোধ/প্রতিকারের উপায়সমূহ জানতে পারলাম। আশা করি এবার নিজেরাই জাল এন্টিভাইরাস সম্পর্কে সচেতন হব এবং এর অপব্যবহার হইতে দূরে থাকব। তথাপি পিসিতে প্রটেকশনের দিক হইতে ভাল মানের ইন্টারনেট সিকিউরিটি ব্যবহারের চেষ্টা করব। টিউনে আরো কিছু বিষয় যোগ করার ইচ্ছা ছিল। বাট কলেবর বৃদ্ধি  ও ব্যস্ততার কারনবশত সংযোজন করা হল না। ইচ্ছা থাকলে পরবর্তী টিউনে নতুন কিছু বিষয় নিয়ে আলোচনা করার চেষ্টা থাকবে। পরিশেষে আজ এই পর্যন্তই। সবাই ভাল থাকবেন, পাশের মানুষটিকে ভাল রাখবেন। -আল্লাহ্ হাফেয-
Previous Post
Next Post

0 comments: Post Yours! Read Comment Policy ▼
লক্ষ্য করুনঃ
পোষ্টের সাথে সম্পৃক্ত নয় এমন কোন কমেন্ট করা যাবে না। কোন কারণ ব্যতীত আপনার ব্লগের লিংক শেয়ার করতে যাবেন না। সবসময় গঠনমূলক মন্তব্য প্রদানের চেষ্টা করবেন। আমরা সবার মতামত সমানভাবে মূল্যায়ন করি এবং যথাসময়ে প্রতি উত্তর দেয়ার চেষ্টা করি।

Post a Comment

 
Copyright © বিডি.পয়সা ক্লিক,নিবন্ধিত ও সংরক্ষিত. মডিফাইঃ পিসি টীম, সার্ভার হোস্টেডঃ গুগল সার্ভিস