Friday, July 7, 2017

ভালোবাসা এমনই এক অনুভূতি যার দাবিকে অগ্রাহ্য করার শক্তি নেই কারো। বিশেষ করে বলতে গেলে প্রেমিক-প্রেমিকার মধ্যবর্তী ভালোবাসাকে কেন্দ্র করে পৃথিবীতে যত ঘটনা অতীতে ঘটে গেছে, বর্তমানে ঘটছে আর ভবিষ্যতে ঘটতে যাচ্ছে, তা সত্যিই বিস্ময়কর। একটিমাত্র অনুভূতি; তারও শত-সহস্র রঙ, অসীম সংখ্যক গল্প!
ইতিহাস ঘেঁটে এমন অনেক প্রেমিক-প্রেমিকার সন্ধান পাওয়া যায়, যাদের প্রেমকাহিনী আলোড়ন তুলেছিলো গোটা সাম্রাজ্য জুড়েই। শুধু তা-ই নয়, তাদের কাল পেরিয়ে শত-সহস্র বছর ধরেও টিকে রয়েছে সেসব প্রেমকাহিনী। অমর সেসব প্রেমকাহিনী আজও মানুষকে ভাবায়, হাসায়, এমনকি ক্ষেত্রবিশেষে কাঁদিয়েও থাকে! ইতিহাসের পাতায় ঠাঁই পাওয়া এমনই কিছু অসাধারণ প্রেমকাহিনী নিয়ে সাজানো হয়েছে আজকের এই লেখাটি।

অ্যান্টনি ও ক্লিওপেট্রা

রুপালি পর্দায় বিভিন্ন সময়ই ক্লিওপেট্রাকে বেশ সুন্দরী হিসেবে উপস্থাপন করা হলেও প্রাচীন বিভিন্ন সূত্রমতে, তিনি দেখতে সাদামাটা একজন মহিলার মতোই ছিলেন। তবে তার ছিলো আকর্ষণীয় এক ব্যক্তিত্ব যা মন্ত্রমুগ্ধ করে রাখতো আশেপাশের সবাইকে। খ্রিস্টপূর্ব ৪৪ অব্দে আততায়ীর হাতে জুলিয়াস সিজার যখন নিহত হন, তখন ক্লিওপেট্রা ছিলেন তার উপপত্নী।
পরবর্তী সময়ে গাইয়াস অক্টেভিয়ান (সিজারের প্রপৌত্র), মার্কাস লেপিডাস (একজন আর্মি জেনারেল) এবং মার্ক অ্যান্টনি (একজন জেনারেল ও রোমান রাজনীতিবিদ) একত্রে রোম শাসন করতে থাকেন। অ্যান্টনি চেয়েছিলেন একইসাথে ক্লিওপেট্রা ও মিশরের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে তুলতে। তবে ক্লিওপেট্রার সাথে সাক্ষাতের পর সবকিছু গোলমাল হয়ে গেলো। আস্তে আস্তে তিনি তার প্রতি দুর্বল হয়ে গেলেন, সাড়া দিলেন ক্লিওপেট্রাও; এভাবেই শুরু হয় ইতিহাসে সাড়া জাগানো এক প্রেম কাহিনীর
অ্যান্টনি ও ক্লিওপেট্রা; Source: svshakespeare.org
তাদের এ প্রেম রাজনৈতিক নানা ক্ষেত্রেও সুফল বয়ে এনেছিলো। ক্লিওপেট্রার ছিলো অর্থ, অ্যান্টনির ছিলো ক্ষমতা। রোম থেকে যেন মিশরে কোনো সামরিক অভিযান চালানো না হয়, সেই দিকটা দেখতেন অ্যান্টনি। আবার অ্যান্টনির সেনাবাহিনীর জন্য অর্থের যোগান দিতেন ক্লিওপেট্রা। ওদিকে রোমের শাসকত্রয়ীর মাঝে প্রায় সময়ই যুদ্ধ লেগে থাকতো। পারস্পরিক শান্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে অ্যান্টনি আগেই অক্টেভিয়ানের বোনকে বিয়ে করেছিলেন। কিন্তু অ্যান্টনির সাথে ক্লিওপেট্রার প্রণয়কে তার বর্তমান স্ত্রী কিংবা অক্টেভিয়ানের কেউই মেনে নিতে পারছিলেন না। তাই অক্টেভিয়ান সরাসরি অভিযোগ করে বসেন রোমান সিনেটে, জানান অ্যান্টনিকে হাতের পুতুল বানিয়ে শাসনকার্য আসলে পরিচালনা করছেন ক্লিওপেট্রাই।
এমন অভিযোগ মেনে নিতে পারেন নি মার্ক অ্যান্টনি। তিনিও মুখের উপর জানিয়ে দেন অক্টেভিয়ানের বোনকে তালাক দিয়ে তাহলে তিনি ক্লিওপেট্রাকেই বিয়ে করতে যাচ্ছেন। বোন জামাইয়ের এমন কথায় যেন মাথায় রক্ত চড়ে যায় অক্টেভিয়ানের। সাথে সাথেই তিনি যুদ্ধ ঘোষণা করে বসেন এ যুগলের বিরুদ্ধে।
৩১ খ্রিস্টপূর্বাব্দের কথা, পশ্চিম গ্রীসে সে বছর সংঘটিত হলো অ্যাক্টিয়ামের যুদ্ধ। অক্টেভিয়ানের নৌবহরের কাছে হেরে যায় অ্যান্টনি-ক্লিওপেট্রার সম্মিলিত বাহিনী। এরপর তারা পালিয়ে চলে যান মিশরে। সেখানে চূড়ান্তভাবে মুখোমুখি হয় দুই বাহিনী। যুদ্ধের এক পর্যায়ে কেউ একজন মিথ্যে সংবাদ নিয়ে আসে অ্যান্টনির কাছে। তাকে জানানো হয় আত্মহত্যা করেছেন ক্লিওপেট্রা। প্রেয়সীর এমন মৃত্যু সংবাদে একেবারেই ভেঙে পড়েন তিনি। যার জন্য এতকিছু করা, সে-ই যখন নেই, তখন বেঁচে থেকেই আর কী লাভ? এই ভেবে নিজের তলপেটে তলোয়ার ঢুকিয়ে আত্মহত্যা করেন রোমান জেনারেল মার্ক অ্যান্টনি।
প্রকৃত সত্য হলো ক্লিওপেট্রাকে তখন বন্দী করা হয়েছিলো। প্রেমিক আত্মহত্যা করেছে শুনে তিনি নিজেও ভেঙে পড়েন মারাত্মকভাবে। এরপর তার মৃত্যু কিভাবে হয়েছিলো তা নিয়ে প্রচলিত আছে নানা কিংবদন্তী। এর মাঝে বিষাক্ত মলম কিংবা গোখরা সাপ ব্যবহার করে আত্মহত্যার কথাই বেশি এসেছে। তবে সাপের সংখ্যা কখনো বলা হয়েছে একটি, কখনোবা দুটি। তাকে খুন করা হয়েছিলো- এমন কথাও বলেছেন কেউ কেউ। ২০১০ সালে জার্মান ইতিহাসবিদ ক্রিস্টোফ শ্যাফার জানান বিষ পান করিয়েই খুন করা হয়েছিলো মার্ক অ্যান্টনির এই প্রেয়সীকে।

নেপোলিয়ন ও জোসেফিন

নেপোলিয়ন ও জোসেফিনের প্রেম কাহিনীকে আসলে যে কোন বিশেষণে বিশেষায়িত করা যাবে তা আমার ঠিক জানা নেই। কেন? এটা বুঝতে হলে জানতে হবে তাদের ভালোবাসার আদ্যোপান্ত।
প্রথম স্বামীর মৃত্যুর পর বেশ কয়েকজনের সাথেই প্রণয়াবদ্ধ হয়েছিলেন জোসেফিন। অবশেষে তরুণ নেপোলিয়ন যখন তার প্রেমে পড়েন, ততদিনে তিনি দুই সন্তানের জননী, বয়সও হয়ে গেছে ৩২। কারো কারো মতে, নেপোলিয়নের সাথে সম্পর্ক স্থায়ী করার দিকে তেমন আগ্রহ ছিলো না জোসেফিনের। বরঞ্চ আর কোনো সুযোগ্য পাত্র না পেয়েই অবশেষে নেপোলিয়নের প্রস্তাব গ্রহণ করতে বাধ্য হন তিনি।
বিয়ের দিন তিনি নেপোলিয়নের কাছ থেকে পাওয়া একটি চমৎকার মেডেল গলায় ঝুলিয়ে এসেছিলেন। ওদিকে অভিযানের ব্যস্ততায় বিয়ের সময়ের কথা একেবারেই ভুলে যাওয়ায় নেপোলিয়ন আসেন কয়েক ঘণ্টা দেরি করে।

নেপোলিয়ন ও জোসেফিন; Source: wedoitfortheloveofmusic.com
বিয়ের দুদিন পরই ইতালিতে চলে যান নেপোলিয়ন। সেখানে গিয়েও জোসেফিনকে ভোলেন নি তিনি। নিয়মিতই প্রেমাবেগে পরিপূর্ণ সব চিঠি লিখতেন তিনি স্ত্রীকে। কিন্তু জোসেফিনের কাছে যেন আবেগ অতটা পাত্তা পেত না। তাই তিনি নিয়মিতভাবে চিঠিগুলোর জবাব দিতেন না। ওদিকে স্বামীর অনুপস্থিতিতে পুরনো অভ্যাস যেন মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে তার। তাই এক লেফট্যানেন্টের সাথে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন তিনি।
স্ত্রীর এমন পরকীয়ার সংবাদ পাওয়ামাত্রই তাদের সম্পর্কের গতিপথ বদলে যায়, সেটাই স্বাভাবিক। এরপর নেপোলিয়ন নিজেও বিভিন্ন নারীর সাথে সম্পর্কে জড়ানো শুরু করেন। সেসব নারীর মাঝে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ছিলেন পলিন ফরেস, যাকে অনেক সময় ‘নেপোলিয়নের ক্লিওপেট্রা’ও বলা হয়ে থাকে। নেপোলিয়ন বলতেন, “ক্ষমতাই আমার উপপত্নী”।
১৮০৯ সালের ডিসেম্বর মাসে অবশেষে জোসেফিনের সাথে বিবাহবিচ্ছেদের ব্যাপারে পাকাপাকি সিদ্ধান্ত নেন নেপোলিয়ন।

অষ্টম হেনরি ও অ্যান বলেইন

ইংল্যান্ডের রাজা অষ্টম হেনরির নারীপ্রীতি ইতিহাসে বিখ্যাত (কিংবা কুখ্যাত) হয়ে আছে। ১৫০৯ সালে তিনি বিয়ে করেন আপন ভাইয়ের বিধবা স্ত্রী ক্যাথেরিনকে। ছয়বার গর্ভধারণ করলেও মাত্র একবারই সুস্থ-সবল সন্তান জন্মদানে সক্ষম হন ক্যাথেরিন। কিন্তু কন্যাসন্তানের জন্ম হওয়ায় ক্যাথেরিনের উপর থেকে মন উঠে যাওয়া শুরু করে হেনরির।
এরপর রাজার নজর পড়ে ক্যাথেরিনের সহচরী ম্যারি বলেইনের দিকে। কিছুদিন পর তার প্রতিও বিতৃষ্ণা ধরে যায় তার, নজর পড়ে ম্যারির ছোট বোন অ্যান বলেইনের দিকে। তার প্রাণোচ্ছলতা ও শিশুসুলভ আচরণই হেনরিকে আকর্ষণ করেছিলো। শুরুতে সেই আকর্ষণকে এড়িয়ে গেলেও বিয়ের প্রস্তাবে মানা করার দুঃসাহস দেখান নি অ্যান। অবশেষে ক্যাথেরিনের সাথে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে রাজার, নতুন রানী হিসেবে প্রাসাদে আগমন ঘটে অ্যানের

রাজা অষ্টম হেনরি ও অ্যান বলেইন; Source: Wikimedia Commons
তবে রাজার স্বভাব এরপরও পাল্টায় নি। কিছুদিনের মাঝে অ্যানকেও আর আগের মতো ভালো লাগতো না তার। অ্যানের রসিকতাগুলো তার কাছে নিরস মনে হতো। অ্যানও স্বামীর সাথে সবার সামনে তর্ক জুড়ে দিতো নানা বিষয়ে। রাজার উপপত্নীদের সাথেও তার ছিলো ঝামেলা। হেনরি অনেকদিন ধরেই চাইছিলেন তার যেন একটি পুত্রসন্তান হয়। কিন্তু অ্যানও একটি কন্যাসন্তান জন্ম দিলে আবারো মুষরে পড়েন রাজা। পরবর্তীতে বেশ কয়েকবার মিসক্যারিজের শিকার হন অ্যান।
এরপরই রাজা মন দেন নতুন রানীর দিকে, প্রাসাদে আনেন জেন সীমূরকে। এটাই যেন সবাইকে বুঝিয়ে দিয়েছিলো যে, রাজপ্রাসাদে অ্যানের শেষ সময় ঘনিয়ে এসেছে। অবশেষে ব্যাভিচার, ইনসেস্ট ও ডাকিনীবিদ্যার অভিযোগে অভিযুক্ত করা হয় অ্যান বলেইনকে। টাওয়ার অফ লন্ডনেই মৃত্যু ঘটে তার।
কিছু কিছু ইতিহাসবিদ বলে থাকেন, রাজা অষ্টম হেনরি আসলে অ্যানকেই সত্যিকার অর্থে ভালোবেসেছিলেন! তবে এ তো রাজকীয় ভালোবাসা। তাই অ্যানের মৃত্যুর মাত্র এক সপ্তাহের মাথায় তিনি বিয়ে করেন জেনকে। পরবর্তীতে রাজপ্রাসাদে আসেন আরো কয়েকজন রানী, বিভিন্ন ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে চলতে থাকে তাদের শিরশ্ছেদও।

পেদ্রো ও আইনেস দ্য ক্যাস্ত্রো

রাজনৈতিক সম্পর্ক সুদৃঢ় করার নিমিত্তে পর্তুগালের যুবরাজ পেদ্রোর সাথে বিয়ে হয়েছিলো লেডি কন্সট্যানযা ম্যানুয়েলের। কিন্তু পেদ্রোর মন তার নববিবাহিতা স্ত্রীর দিকে ছিলো না। বরং তার মন আটকে গিয়েছিলো হবু রানীর সহচরী আইনেস দ্য ক্যাস্ত্রোর প্রতি।
সম্ভ্রান্ত পরিবারের সন্তান আইনেস দেখতেও ছিলেন বেশ চমৎকার। বলা হয়ে থাকে, আইনেস এতটাই সুন্দরী আর ফর্সা ছিলেন যে তিনি যখন ওয়াইন পান করতেন, তখন তার গলা দিয়ে নাকি সেটি নামতে দেখা যেত!
তাদের এমন খোলামেলা সম্পর্ক ভালোভাবে নেন নি পেদ্রোর বাবা রাজা চতুর্থ আলফন্সো। তাই তিনি অ্যালবাকার্কির এক দুর্গে আইনেসকে নির্বাসনে পাঠান। ১৩৪৫ সাল পর্যন্ত তিনি সেখানেই ছিলেন। সন্তান জন্ম দিতে গিয়ে কনস্ট্যানযার মৃত্যু হলে পেদ্রোর সামনে আর কোনো বাধা রইলো না। আইনেসকে প্রাসাদে নিয়ে আসেন তিনি, সেরে ফেলেন শুভ বিবাহের কাজটাও। কিন্তু আইনেসের ভবিষ্যতে রানী হওয়াটা কিছুতেই মানতে পারছিলেন না আলফন্সো।
পেদ্রো ও আইনেস দ্য ক্যাস্ত্রো; Source: pioneersgallery.ca
১৩৫৫ সালের ৭ জানুয়ারি এক কাজে প্রাসাদের বাইরে ছিলেন পেদ্রো। সেদিনই মোক্ষম সুযোগ পেয়ে যান আলফন্সো। তার পাঠানো আততায়ীত্রয়ীর হাতে নিজের সন্তানের সামনে শিরশ্ছেদের মাধ্যমে খুন হন আইনেস। পেদ্রো এসে যখন এ ঘটনাটি জানতে পারলেন, তখন রাগে অগ্নিশর্মা হয়ে যান তিনি, ঘোষণা করেন বাবার বিরুদ্ধে যুদ্ধ। এভাবেই পর্তুগালে শুরু হয়ে যায় গৃহযুদ্ধ।
১৩৫৭ সালে অবশেষে নিহত হন আলফন্সো, সিংহাসনে বসেন নতুন রাজা পেদ্রো। সিংহাসনে বসেই স্ত্রীর হত্যাকারীদের খুঁজে বের করেন তিনি। জীবন্ত অবস্থায় তাদের দেহ থেকে হৃৎপিণ্ড কেটে বের করা হয়। এরপর স্ত্রীর মৃতদেহ কবর থেকে তুলে সামনে আরেকটি সিংহাসনে বসিয়ে শাসনকার্য শুরু করেন তিনি।

শাহজাহান ও মমতাজ মহল

আপনি কি ‘শাহানশাহ আল-সুলতান আল-‘আজম ওয়াল খাক্বান আল-মুকাররাম, মালিক-উল-সালতানাত, আলা হযরত আবুল-মুজাফফার শাহাব উদ-দীন মুহাম্মাদ শাহ জাহান, সাহিব-ই-কিরান-ই-সানী, পাদশাহ গাজী জিল্লুল্লাহ, ফিরদাউস-আশিয়ানী, শাহানশাহ-ই-সালতানাত উল হিন্দিয়া ওয়াল মুঘলিয়া’-কে চেনেন? সম্রাট হিসেবে এটাই ছিলো শাহজাহানের উপাধি!
শাহজাহান মোট ৭টি বিয়ে করেছিলেন। এর মাঝে ৪র্থ স্ত্রী মমতাজের প্রতি তার ভালোবাসার নিদর্শনস্বরুপ নির্মিত তাজমহলের খ্যাতি জগতজোড়া। মমতাজের প্রকৃত নাম ছিলো আরজুমান বানু বেগম। তার প্রতি সম্রাটের ছিলো অগাধ ভালোবাসা। এজন্য সিংহাসনে আরোহন করে তিনি আরজুমানকে ‘মমতাজ মহল’ উপাধিতে ভূষিত করেন, যার অর্থ ‘প্রাসাদের রত্ন’।
শাহজাহান ও মমতাজ মহল; Source: pinterest.com
স্ত্রীদের মাঝে তিনিই ছিলেন শাহজাহানের সর্বাধিক প্রিয়। কিন্তু ঘন ঘন সন্তান জন্মদানের ফলে স্বাস্থ্য খারাপ হতে শুরু করে তার। অবশেষে চতুর্দশতম সন্তান জন্মদানের সময় পরপারে পাড়ি জমান মমতাজ। স্ত্রীর মৃত্যুতে শাহজাহান এতটাই ভেঙে পড়েন যে, টানা দুই বছর ধরে সাম্রাজ্যে শোক পালনকাল হিসেবে ঘোষণা করা হয়।
পরবর্তীতে মমতাজের স্মৃতিকে চির স্মরণীয় করে রাখতেই তিনি জগদ্বিখ্যাত স্থাপনা ‘তাজমহল’ নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেন। প্রায় ২৩ বছর সময় নিয়ে বানানো এ ভবনটি আজও বিশ্বের বুকে মোঘল স্থাপত্যের এক অনন্য নিদর্শন হিসেবে সগর্বে নিজের অস্তিত্ব জানান দিয়ে চলেছে। প্রতিদিনই হাজার হাজার দর্শনার্থী ছুটে যান সেখানে, ছুটে যান অমর এক ভালোবাসার সাক্ষী হতে। সেখানেই চিরনিদ্রায় পাশাপাশি শায়িত আছেন সম্রাট শাহজাহান ও সম্রাজ্ঞী মমতাজ।

السلام عليكم আসসালামু আলাইকুম। 
সুপ্রিয় টিটি সাইটের সবাইকে সালাম ও শুভেচ্ছা। ব্যক্তিগত আমি এই পর্যন্ত নিজে যতগুলো এন্টিভাইরাস ব্যবহার করেছি ইসেটের সাথে কারোর তুলনা হয়না যদি প্রশ্ন করা হয় বর্তমানে কোন এন্টিভাইরাস টপ লিডার হিসাবে সবার উপরে? এখানে আমি ইসেটকেই সবার শীর্ষেই বলব আরও বলব এখন ইসেটের প্রতিদ্বন্দী শুধু ইসেটই বর্তমানে এন্টিভাইরাস হিসাবে ১ম Eset, ২য় Norton, ৩য় Kaspersky অবস্থানে আছে তাছাড়া Eset একটি শান্ত শীষ্ট এন্টিভাইরাস বিশ্বের প্রায় ১০০ মিলিয়ন ইউজার এটি ব্যবহার করছে এবং পৃথিবীর প্রায় ১৯০ টি দেশেই এটির অনুমোদিত ডিলার রয়েছে  ইসেট ব্যবহারের সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট হলঃ এটি পিসিকে কখনোই  স্লো করেনা। বরং পূর্বের থেকে পিসির গতিকে সাবলিল ও গতিশীল করে তোলে। অযথা Ram এর  জায়গা দখল করেনা।



বর্তমানে ইসেটের সবর্শেষ ভার্সন হচ্ছে ১০। মূলত আমি আপনাদেরকে একটি সিরিয়াল কি প্রদান করব যেটি আগামী বছরের (২০১৮)এর জানুয়ারী মাস পর্যন্ত কাজ করবে। এবং সিরিয়াল কী এই টিউনের শেষে ডাউনলোড করে নিতে পারবেন। 

Eset  কে কিভাবে ইনষ্টল/ ব্যবহার করবেন?


পূর্বে Eset Install করা অনেক সহজ ব্যাপার ছিল। অর্থাৎ পূর্বে Eset  সাইট থেকে যে কোন ফাইলকে ডাউনলোড করে নিলে শুধু Password ও Serial Key দিলেই হত। তাছড়া Download ফাইলকে অফলাইন হিসাবে যে কোন সময় পূনরায় ইনষ্টলের কাজে লাগানো যেত। বর্তমানে Eset Vendor অনেক চালাক হয়ে গেছে।  যেখানে অন্য এন্টিভাইরাস কোম্পানীর অফলাইনে Install এর সুবিধা দেয়  কিন্তু ইসেট এখানে অফলাইনের মত Install এর সুযোগ বন্ধ করে দিয়েছে।  তাই Install করতে হলে ইসেটের সাইট থেকে Live Install করতে হবে। অবশ্য যাদের পিসিতে পূর্বে ইসেটের ফাইল Download করা অআছে (প্রায় ৫৮ MB সাইজের) তারা অফলাইনে Install  করতে পারবেন। কিন্তু সমস্যা একটি থাকছে যখনই নতুন করে আপডেট করা হচ্ছে তখন পূর্বেকার Install system কে ইসেট সার্পোট করছেনা। যেমন আমি পূর্বেকার System এ-ফাইল ডাউনলোড করতে গিয়ে ৪ বার ধরা খেয়েছি। দেখা গেছে এখানে সবই ইনষ্টল ও আপডেট হয়েছে কিন্তু ফাইল Missing করছে ইসেট সঠিকভাবে কাজ করছেনা। তাই সবচেয়ে উত্তম কাজ হল- Eset server থেকে সরাসরি Install ও Update করা। কিংবা অফলাইন ফাইল নামিয়ে তা ইনস্টল করা।
  • ইসেট স্মার্ট সিকিউরিটি ডাউনলোড করে নিন অফিসিয়াল সাইট হইতে এখানে

নির্দেশনাঃ

অফলাইন কিংবা অনলাইন ফাইল ইনস্টল নির্দেশ দিলে একপর্যায়ে লাইসেন্স একটিভেশনের জন্য একটি ফাঁকা ঘর বিশিষ্ট চিত্র আসবে সেখানে লাইসেন্স কোড প্রয়োগ করতে হবে লাইসেন্স কোড আমার টিউনের সবার নিচের লিংক হতে নামিয়ে নিবেন

লাইসেন্স কোড সঠিক ভাবে প্রয়োগ করলে একটি চিত্র আসবে। সেখানে Done বাটনে ক্লিক করুন।


ব্যাস! কাজ শেষ। এবার লাইসেন্স কী শো করবে পরিপূর্ণ ১ বছরের জন্য।



  •  Eset License Key Download করুন

Latest Update Licens (valid till 27.10.2017)

AFAX-W333-HAA5-58S2-6RTW
AFAX-W333-H4HN-N223-2BWP
AFAX-W333-HWCS-SMS6-CF8M

 সর্বশেষ

আশা করি, টিউটোরিয়ালটি অনুসরন করে এবার নিজেই উপরোক্ত কাজটি করতে পারবেন। ব্যাস! এবার আরামসে ব্যবহার করুন ৩৬৫ দিনের জন্য ইসেট স্মার্ট সিকিউরিটি। এবং পিসিকে রাখুন ১০০% ভাইরাস মুক্ত। আজ এই পর্যন্তই। পোষ্টটির কোন ভূল ত্রুটি দৃষ্টি গোচর হলে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখার আহবান রাখছি। পরিশেষে সবার সুখী জীবন ও সুস্থতা কামনা করছি। আল্লাহ হাফেজ-

Friday, April 28, 2017

কয়েক হাজার অক্ষরের বিন্যাসে লেখা ইতিহাসের বইটা যতটা নীরস লাগে, মূল ইতিহাস কিন্তু ততোটা রসহীন হয় না। প্রতিটি ইতিহাসের সাথে জড়িয়ে থাকে অজস্র উত্থান-পতন, রক্তপাত, দুর্বিষহ বাস্তবতা। “বখতিয়ার খিলজী ১২০৪ সালে মাত্র ১৭ জন অশ্বারোহী সেনা নিয়ে নদীয়ার রাজা লক্ষণ সেনকে পরাজিত করে বাংলা জয় করেন”- ইতিহাসের বইয়ের এই লাইনটি নিশ্চয় সবার ঝাড়া মুখস্ত রয়েছে? যদিও এর আগের বা পরের কোনো কিছুই আমাদের ঠিকমতো জানা নেই। চলুন জেনে নেয়া যাক সেই বখতিয়ার খিলজী আর তার দুর্ধর্ষ অভিযানের কথা।


শিল্পীর চোখে বখতিয়ার খিলজী : kalayi.blogspot.com

খ্রিষ্টীয় ত্রয়োদশ শতকের গোড়ার কথা। তখন বাংলায় রাজত্ব করতেন সেন বংশের রাজা লক্ষণ সেন। তিনি নদীয়ায় বাস করতেন। একদিন তার দরবারের পন্ডিতরা তাকে বললেন যে, তাদের প্রাচীন গ্রন্থে লিখিত আছে, বাংলা তুর্কীদের দখলে যাবে। ততদিনে সমগ্র উত্তর ভারত তুর্কীরা অধিকার করেছে এবং বখতিয়ার খিলজী বিহার জয় করেছেন।
রাজা ব্রাহ্মণ পন্ডিতদের কাছে জানতে চাইলেন প্রাচীন গ্রন্থে বাংলা আক্রমণকারীর দেহাবয়ব সম্পর্কে কোনো ইঙ্গিত আছে কিনা। জবাবে পন্ডিতগণ জানান, যে তুর্কী বাংলা জয় করবেন, তিনি আকৃতিতে খাটো এবং দেখতে কুৎসিত হবেন, তার হাতগুলো হাঁটু পর্যন্ত লম্বা হবে। বিশ্বস্ত লোক পাঠিয়ে রাজা লক্ষণ সেন নিশ্চিত হন যে, বিহারজয়ী বখতিয়ার খিলজীর সাথে উক্ত বিবরণগুলি মিলে যায়। তুর্কী আক্রমণ এক প্রকার অত্যাসন্ন বুঝেও লক্ষণ সেন তা আমলে নেন নি। ব্রাহ্মণ পন্ডিতগণ রাজার অনুমতি ছাড়াই নদীয়া ছেড়ে চলে যান।
ঐতিহাসিক মিনহাজ-ই-সিরাজ তার ‘তবকাত-ই-নাসিরি’ গ্রন্থে উপরোক্ত তথ্যটি প্রকাশ করেন। ঘটনাটি সত্যিই ঘটেছিলো কিনা তা জোর দিয়ে বলার উপায় নেই। কিন্তু তার অনতিকাল পরেই বখতিয়ার খিলজী নদীয়া আক্রমণ করেন এবং বাংলায় মুসলিম শাসন সাম্রাজ্য স্থাপন করেন।
উপমহাদেশে মুসলিম সাম্রাজ্য বিস্তারের তিনটি স্তর দেখা যায়। প্রথমত, আরবগণ মুহাম্মদ বিন কাসিমের নেতৃত্বে ৭১২ খ্রিস্টাব্দে সিন্ধু ও মুলতান জয় করে। দ্বিতীয় পর্যায়ে তুর্কী সুলতান আমীর সবুক্তগীন ও তার পুত্র সুলতান মাহমুদ দশম শতাব্দীর শেষ দিকে বারবার উপমহাদেশ আক্রমণ করে লাহোর পরিবেষ্টিত এলাকা স্বীয় গজনী রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত করেন। তৃতীয় পর্যায়েও তুর্কীরাই আক্রমণ পরিচালনা করে। এইবার নেতৃত্ব দেন মুহাম্মদ ঘুরী। এবারের আক্রমণে তুর্কীরা দিল্লীকে কেন্দ্র করে উপমহাদেশে স্থায়ী মুসলিম সাম্যাজ্য প্রতিষ্ঠা করে। বখতিয়ার খিলজীর বাংলা আক্রমণ এই তৃতীয় পর্যায়ের আক্রমণেরই অংশ।
ইখতিয়ার উদ্দিন মুহাম্মদ বিন বখতিয়ার খিলজী আফগানিস্তানের গরমশির এলাকার অধিবাসী ছিলেন। তিনি তুর্কীদের খিলজী সম্প্রদায়ভুক্ত ছিলেন। তার বাল্যজীবন সম্পর্কে বিশেষ কিছু জানা যায় না। তবে মনে করা হয় যে, তিনি দারিদ্রের নিষ্পেষণে স্বদেশ পরিত্যাগ করে জীবিকার সন্ধানে বের হন। মুহাম্মদ ঘুরী তখন ভারতীয় উপমহাদেশে অভিযান চালাচ্ছিলেন। বখতিয়ার, ঘুরীর সৈন্যদলে চাকুরীপ্রার্থী হয়ে ব্যর্থ হন। তখন নিয়ম ছিলো, প্রত্যেক সৈন্যকে নিজ ঘোড়া ও যুদ্ধাস্ত্রের ব্যবস্থা নিজেকেই করতে হতো। সামর্থ্যের অভাবে বখতিয়ার ঘোড়া বা ঢাল-তলোয়ার কিছুই যোগাড় করতে পারেননি। তাছাড়া খাটো দেহ, লম্বা হাত ও কুৎসিত চেহারার বখতিয়ার খিলজী সেনাধক্ষ্যের দৃষ্টিও আকর্ষণ করতে পারেননি।

গজনীতে ব্যর্থ হয়ে বখতিয়ার দিল্লীর সম্রাট কুতুবউদ্দিন আইবেকের কাছে আসেন এবং সেখানেও ব্যর্থ হন। অতঃপর বখতিয়ার পূর্বদিকে অগ্রসর হয়ে বদাউনে গিয়ে পৌঁছেন। বদাউনের শাসনকর্তা মালিক হিজবর-উদ-দীন তাকে নগদ বেতনে চাকুরীতে রাখেন, তবে এমন চাকুরীতে বখতিয়ার সন্তুষ্ট ছিলেন না। কিছুদিন কাজ করার পর তিনি অযোধ্যায় চলে যান। অযোধ্যার শাসক হুসাম-উদ-দীন বখতিয়ারের প্রতিভা অনুধাবন করেন এবং তাকে ভিউলী ও ভগত নামে দু’টি পরগনার জায়গীর প্রদান করে মুসলিম রাজ্যের পূর্বসীমান্তে সীমান্তরক্ষীর কাজে নিযুক্ত করেন। এখানে বখতিয়ার তার ভবিষ্যৎ উন্নতির সম্ভাবনা দেখতে পান।
বখতিয়ারের জায়গীর সীমান্তে অবস্থিত হওয়ায় তিনি পার্শ্ববর্তী হিন্দু রাজ্যগুলির সংস্পর্শে আসেন এবং স্বীয় রাজ্য বিস্তারের পরিকল্পনা গ্রহণ করেন। পার্শ্ববর্তী হিন্দু রাজ্যগুলিতে পূর্বে থেকেই তুর্কী আক্রমণের আতঙ্ক লেগে ছিলো। তার উপরে পারষ্পারিক অন্তর্বিরোধ লেগে থাকাতে সংঘবদ্ধ হওয়া তাদের জন্য সম্ভব ছিল না। বখতিয়ার খিলজীর জন্যে এটা ছিল উপযুক্ত সুযোগ। তিনি কিছু সৈন্য সংগ্রহ করে এক এক করে হিন্দু রাজ্য আক্রমণ ও লুট করতে থাকেন। এই সময় ঠিক রাজ্য বিস্তার করা তার উদ্দেশ্য ছিল না, বরং ধন-সম্পদ হস্তগত করে একটি বিরাট সৈন্যবাহিনী গঠন করে বড় একটা কিছু করাই তার পরিকল্পনা ছিল। ধীরে ধীরে তার নাম ছড়িয়ে পড়তে শুরু করলে চারিদিক থেকে ভাগ্যান্বেষী মুসলিমরা, বিশেষ করে বখতিয়ারের স্বীয় খিলজী সম্প্রদায়ভুক্ত লোকজন এসে তার সাথে যোগ দিতে থাকে।

বৌদ্ধভিক্ষুদের হত্যা করেন বখতিয়ার খিলজী : en.wikipedia.org

এইভাবে অগ্রসর হবার সময় একদিন তিনি প্রাচীরবেষ্টিত দুর্গের ন্যায় একটি স্থানে এসে উপস্থিত হন। সেখানেও স্বভাবসুলভ চড়াও হয়ে তিনি এর বহু অধিবাসী হত্যা করেন এবং কোনো বাধা ছাড়াই জায়গাটি দখল করে নেন। সেখানকার অধিবাসিরা সকলেই ছিল মুন্ডিত মস্তক, এরা ছিল বৌদ্ধ ভিক্ষু এবং স্থানটি ছিল বই-পুস্তকে পরিপূর্ণ। জিজ্ঞাসাবাদ করে তিনি জানতে পারেন সেটি কোনো দুর্গ নয়, বৌদ্ধবিহার। বিহারটির নাম ওদন্তপুরী বিহার। ঐ সময় থেকে মুসলিমরা জায়গাটির নাম দিলেন বিহার বা বিহার শরীফ। জায়গাটি সেই নামেই এখনও পরিচিত। এভাবেই বিহার জয় করে নেন বখতিয়ার খিলজী। বিহারে এখনও বখতিয়ারপুর নামে একটি জায়গা আছে। এছাড়া এই লাগামহীন বিজয়ের পথে বখতিয়ার ঐতিহাসিক নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ও ধ্বংস করেন।

নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের ধ্বংসাবশেষ : en.wikipedia.org

এর পরের বছর আরও বিপুল সংখ্যক সৈন্য নিয়ে বখতিয়ার নদীয়া আক্রমণ করেন। তিনি এতোই ক্ষিপ্রতার সাথে ঘোড়া চালনা করেন যে, তার সাথে মাত্র ১৮ জন সেনা আসতে পেরেছিলো। আমাদের দেশে প্রবাদ আছে যে, ১৭ জন অশ্বারোহী বাংলা জয় করেন। কথাটি সম্পূর্ণ সঠিক নয়। ঐতিহাসিক মিনহাজ সুস্পষ্টভাবে বলেন, বখতিয়ার খিলজী ১৮ জন অশ্বারোহী নিয়ে নদীয়া পৌঁছেন এবং তার মূল বাহিনী পেছনে আসছিল।
রাজা লক্ষণ সেনের রাজধানী ছিল ঢাকার বিক্রমপুরে। তিনি বৃদ্ধ বয়সে গঙ্গাপাড়ের পবিত্র তীর্থস্থান নদীয়ায় বাস করছিলেন। তিনি একজন সাহসী যোদ্ধা এবং সুশাসক ছিলেন। নিজ রাজ্য রক্ষার কোনো পূর্ব প্রস্তুতি তিনি নেন নি এমনটা ধরা যায় না। ঐতিহাসিকগণ মনে করেন, তিনি রাজ্যের মূল প্রবেশপথ তেলিয়াগড় গিরিপথে প্রহরার ব্যবস্থা করেছিলেন। কিন্তু সুকৌশলী বখতিয়ার খিলজী সেই পথে না গিয়ে দক্ষিণ দিকের জঙ্গলাকীর্ণ এলাকা ঝাড়খন্ডের মধ্যে দিয়ে অগ্রসর হন।
তিনি তার বাহিনীকে ছোট ছোট দলে ভাগ করেন এবং নিজে এরকম একটি দলের অগ্রভাগে ছিলেন। ফলে যখন তিনি নদীয়া পৌঁছেন, কেউ ভাবতেও পারেননি যে তুর্কী বীর বখতিয়ার খিলজী বাংলা জয় করতে এসেছেন। সবাই তাকে সাধারণ ঘোড়া ব্যবসায়ী ধরে নেয়। খিলজী সোজা রাজা লক্ষণ সেনের প্রাসাদদ্বারে উপস্থিত হন এবং দ্বাররক্ষীদের হত্যা করেন। রাজা তখন মধ্যাহ্নভোজে লিপ্ত ছিলেন। খবর শুনে তিনি নগ্নপদে প্রাসাদের পশ্চাৎদ্বার দিয়ে পলায়ন করেন এবং বিক্রমপুরে গিয়ে আশ্রয় গ্রহণ করেন।
বখতিয়ার খিলজী ৩ দিন যাবৎ নদীয়া লুটপাট করেন। লক্ষণ সেনের বিপুল ধন-সম্পদ, ভৃত্যবর্গ ও অনেক হস্তী তার হস্তগত হয়। প্রায় বিনা যুদ্ধেই বখতিয়ার নদীয়া জয় করে নেন। মনে রাখতে হবে, তিনি সমগ্র বাংলা জয় করেননি, বাংলার একটি অংশ জয় করেছিলেন মাত্র। তিনি নতুন জয় করা রাজ্যের নাম রাখেন ‘লখনৌতি’।
নবপ্রতিষ্ঠিত রাজ্যে তিনি সুশাসনের ব্যবস্থা করেন। তার সাথে অভিযানে সময় এবং পরবর্তীতে যেসব মুসলিম সেখানে বসবাসের জন্য আসেন, তাদের জন্য তিনি মসজিদ, মাদ্রাসা ও খানকাহ নির্মাণ করেন। তিনি জানতেন, শুধু সামরিক শক্তির উপরেই একটি রাজ্যের প্রতিরক্ষা নির্ভর করে না, পরিপূর্ণ শান্তির জন্য চাই অভ্যন্তরীন শৃঙ্খলা। আর তাই তার প্রতিষ্ঠিত মুসলিম রাজ্যের স্থায়ীত্ব বিধানে তিনি সুষ্ঠু মুসলিম সমাজ তৈরির প্রয়াস নেন।

বখতিয়ারের নামে বখতিয়ারপুর জংশন, বিহার : en.wikipedia.org

হিন্দু ও বৌদ্ধধর্মাবলম্বীদের কাছে বখতিয়ার খিলজী শুধুই একজন খুনী, লুটেরার নাম। তবে এটাও ঠিক, ইতিহাসের একটি অংশের ধ্বংস তার হাতে এবং আরেকটি অংশের সৃষ্টি তার হাতে। তার আমলে ভারতবর্ষে বিপুল পরিমাণ মানুষ ইসলাম ধর্মে দীক্ষিত হয়। বাংলাদেশের খ্যাতিমান কবি আল মাহমুদ তার ‘বখতিয়ারের ঘোড়া’ কাব্যগ্রন্থে বখতিয়ার খিলজীকে একজন প্রশংসনীয় বীর হিসেবে চিত্রায়িত করেছেন। যদিও এই দুর্ধর্ষ বীরের পরিসমাপ্তি সুখকর হয়নি। বাংলা বিজয়ের অনতিকাল পরে তিনি তিব্বত আক্রমনে বের হন। এই অভিযানে তিনি শোচনীয়ভাবে ব্যর্থ হন এবং তার বিপুল সংখ্যক সেনা ধ্বংস হয়ে যায়। মানসিক ও শারীরিকভাবে বিপর্যস্ত অবস্থায় ১২০৬ সালে বখতিয়ার খিলজী ইহলোক ত্যাগ করেন।


বাংলায় মুসলিম শাসনের গোড়াপত্তন করে দেন বখতিয়ার খিলজী : pantip.com
তথ্যসূত্র
১) বাংলার ইতিহাসঃ সুলতানী আমল- আবদুল করিম
২) en.wikipedia.org/wiki/Muhammad_bin_Bakhtiyar_Khilji
৩) thetinyman.in/2012/09/bakhtiyar-khiljis-conquest-of-bengal.html

ছোটবেলায় হ্যামেলিনের বাঁশিওয়ালার গল্প শুনে বা পড়ে আসেনি এমন কাউকে নিশ্চিতভাবেই পাওয়া যাবে না। তবে কোনো এক কারণে নামটা অনেক জায়গাতেই ছিল ‘হ্যামিলন’, অথচ নামটা হবে ‘হ্যামেলিন’। প্রশ্ন উঠতে পারে, এই গল্প নিয়ে হঠাৎ মেতে উঠলাম কেন? কারণ এটি নিছক গল্পই না, এর পেছনেও রয়েছে কিছু কথা; এমন কি হতে পারে না যে, হ্যামেলিনের বাঁশিওয়ালার ঘটনা আসলে অতিরঞ্জিত হলেও সত্য?


ছোটবেলায় যে গল্পটা আপনি জেনেছিলেন, সেটা আরেকবার সংক্ষেপে বলবো, তবে কাহিনীর ভাঁজে ভাঁজে যে নিখুঁত বিবরণগুলো রয়েছে সেদিকে নজর দেব আমরা।

ম্যাপে হ্যামেলিন

জার্মানির লোয়ার স্যাক্সনির হ্যামেলিন শহর। সালটা ছিল ঠিক ১২৮৪। হ্যামেলিন শহর তখন ইঁদুরের প্রকোপের স্বীকার। হঠাৎ একদিন কোথা থেকে যেন এসে হাজির এক বাঁশিওয়ালা (পাইপার/Piper) , তার গায়ে ছিল হরেক রঙের পোশাক। (পাইড/Pied= হরেক রঙা) সে এক উপায় বাতলে দিল হ্যামেলিনের মেয়রের কাছে। মেয়র Mauldin বললেন, ঠিক আছে, ইঁদুর তাড়িয়ে দাও, তাহলে তোমাকে আমি ১০০০ সোনার মুদ্রা দেব। বাঁশিওয়ালা রাজি হয়ে গেল, তার বাঁশি বাজালো আর সুড় সুড় করে সবগুলো ইঁদুর পেছন পেছন এসে তলিয়ে গেল শহরের পাশের Weser নদীর জলে। তবে একটা ইঁদুর বেঁচে গেল কীভাবে যেন!
বাঁশিওয়ালা ফিরে এলো, তার প্রাপ্য চাইলো। কিন্তু মেয়র তাকে ১০০০ সোনার মুদ্রা দিতে চাইলেন না, দিলেন মাত্র ৫০! সাথে আরো বলে বসলেন, বাঁশিওয়ালা নিজেই এই ইঁদুরগুলো এনেছিল যেন তাড়িয়ে টাকা আয় করতে পারে! বাঁশিওয়ালা চলে গেল রেগে, যাবার আগে বলে গেল প্রতিশোধ নিয়ে ছাড়বে।
১২৮৪ সালের জুন মাসের ২৬ তারিখ শহরে ফিস্ট চলছিল, রোমে জন এবং পলের শহীদ হবার স্মরণে সেন্ট জন-পল দিবস পালন করা হয়। এটিই চলছিল সেদিন, সবাই ছিল চার্চে, যখন বাঁশিওয়ালা ফিরে এলো, তবে এবার মোটেও রঙ বেরঙের পোশাকে নয়, একরঙা সবুজ পোশাকে। (সবুজ মানে ছিল শিকারি) তখন বাজে সকাল সাতটা। সে বাজানো শুরু করল তার মায়াবী বাঁশি। শহরের সব চার বছরের বড় শিশু বেরিয়ে এলো, গুণে গুণে ১৩০ জন শিশু (মেয়রের মেয়েও ছিল সেখানে)! বাঁশিওয়ালার বাঁশির সুরে শিশুগুলো সম্মোহিত হয়ে এক পাহাড়ের ওপাশের গুহায় ঢুকে গেল, আর কোনদিন বেরিয়ে এলো না। [তাদের নাকি নিয়ে যাওয়া হয় ট্রান্সিল্ভানিয়াতে]

শিল্পীর চোখে হ্যামেলিনের বাঁশিওয়ালা

তিন জন শিশু বেঁচে গিয়েছিল। একজন কানে শুনতে পেত না, তাই সুর শোনেনি। আর অন্যজন অন্ধ হয়ে জন্মাবার কারণে দেখতে পায়নি কোথায় যেতে হবে। আরেকজন জ্যাকেট ফেলে গিয়েছিল বলে আবার ফেরত আসে, জ্যাকেট নিয়ে আবার গিয়ে দেখে সবাই চলে গেছে। এই তিন শিশুর মাধ্যমেই চার্চফেরত প্রাপ্তবয়স্করা পরে জানতে পারল কী হয়েছে। আরেকটি বেবিসিটার মেয়ে কোলে শিশু নিয়ে পেছন পেছন গিয়েছিল অনেকদূর দেখতে, সে সবার আগে ফেরত এসে কাহিনী বলেছিল।
ঘটনার আরেক ভার্সনে বলা হয় শিশুদের নিয়ে বাঁশিওয়ালা চলে যায় কোপেলবার্গ পাহাড়ের ওপারে।
হয়ত আপনি ভাবছেন, এ তো নিছক এক গল্প! কিন্তু না, ১২৮৪ সালের ঘটনার পরেই চার্চে Stained-glass জানালা লাগানো হয় ১৩০০ সালের দিকে। সেখানে এই করুণ ঘটনা লেখা ছিল। জানালাটা বানাবার উদ্দেশ্যই ছিল শিশুদের স্মরণ করা। জানালাটা ধ্বংস হয়ে যায় ১৬৬০ সালে, পরে ইতিহাসবিদ হ্যান্স ডবারটিন ঐতিহাসিক লিখনি থেকে এই জানালা পুনঃনির্মাণ করেন। সেখানে দেখা যায় বাঁশিওয়ালা আর সাদা পোশাকে শিশুদের ছবি।

জানালার উপর এ চিত্রই আঁকা ছিল

আমরা যেরকম ‘খ্রিস্টাব্দ’ বলি, যার মাধ্যমে খ্রিস্টের জন্ম স্মরণ করা হয়, তেমনই হ্যামেলিন শহরের সরকারি ঐতিহাসিক রেকর্ড শুরুই হয় এই ঘটনার রেফারেন্সে। প্রথম যে এন্ট্রি লিপিবদ্ধ আছে, সেটি হলো ১৩৮৪ সালের, সেখানে লিখা- “১০০ বছর হতে চলেছে আমাদের শিশুদের হারিয়েছি।” ১৫৫৯ সালের বিস্তারিত বিবরণ থেকে ইঁদুরের ঘটনা পাওয়া যায়। তার আগ পর্যন্ত শিশুদের হারাবার করুণ ঘটনা প্রাধান্য পাওয়ায় আগের ইঁদুরের ঘটনা প্রাধান্য পেত না।
সবচেয়ে মজার ব্যাপার, যদিও এই ঐতিহাসিক লেখনি সংরক্ষিত আছে, তারপরেও এই অদ্ভুত ঘটনার বাস্তবিক ব্যাখ্যা দিতে না পারায় অনেকেই অস্বীকার করে বসেন যে আদৌ এ ঘটনা ঘটেছিল। এখন পর্যন্ত কেউই এর নিশ্চিত ব্যাখ্যা দিতে পারে নি। কেউ বলেছেন, পাইড পাইপার আসলে এক শিশুকামী ছিল, তবে কীভাবে এতজনকে নিয়ে গেল তার ব্যাখ্যা নেই। কারো মতে, ব্ল্যাক ডেথ মহামারিতে সব শিশু মারা যাওয়াতে গ্রামবাসী এই কাহিনী বানিয়েছে। কেউ বলেছে, এই শিশুদের ক্রুসেডে পাঠানো হয়েছিল, গ্রামবাসী যখন দেখল শিশুরা আর ফেরে নি, তখন এই ধাপ্পাবাজি গল্প ফেঁদে বসল নিজেদের বুঝ দিতে। [সেই ক্রুসেড ১২১২ সালে হয়েছিল বলে এই থিওরি বাদ দিতে হয়, অনেক আগের ঘটনা যে!]
১৩৮৪ সালে হ্যামেলিনের ডেকান লুডের কাছে থাকা বইতে লাতিনে লিখা বাক্যে তার দাদীর ভাষ্যে নিজের চোখে দেখা হ্যামেলিনের বাঁশিওয়ালার ঘটনা লিখিত ছিল। সতের শতকে এসে বইটি হারিয়ে যায়।
১৪৪০ সালের Lüneburg পাণ্ডুলিপিতে জার্মান ভাষায় লিখা আছে, হ্যামেলিনের এক বাড়ির দেয়ালে খোদাই করে লিখা এই অনুচ্ছেদ-
ANNO 1284 AM DAGE JOHANNIS ET PAULI WAR DER 26. JUNIDORCH EINEN PIPER MIT ALLERLEY FARVE BEKLEDET GEWESEN CXXX KINDER VERLEDET BINNEN HAMELN GEBORENTO CALVARIE BI DEN KOPPEN VERLOREN
অর্থঃ “১২৮৪ সালের ২৬ জুন, সেন্ট জন পল দিবসে হ্যামেলিনে জন্ম নেয়া ১৩০ জন শিশু এক হরেক রঙা বংশীবাদকের সম্মোহনে পেছন পেছন হারিয়ে যায় কোপেনের পেছনের কাল্ভারিতে।”
কোপেন হ্যামেলিনকে ঘিরে থাকা পাহাড়। ১৫৫৬ সালে বলা হয়, বংশীবাদক আসলে ছিল স্বয়ং শয়তান। কালের বিবর্তনে আধুনিক যুগে এসে কেউ কেউ বলেছেন বাঁশিওয়ালা আসলে ছিল এক এলিয়েন, কোপেন পাহাড়ের আড়ালে রাখা মহাকাশযানে করে শিশুদের নিয়ে গিয়েছিল নিজের গ্রহে, কারণ সেখানে জনসংখ্যা বাড়ানো দরকার ছিল। নির্দিষ্ট ফ্রিকুয়েন্সির সুর বাজিয়ে কখনো ইঁদুর কখনো শিশু আকর্ষণ করতে পারত তার যন্ত্র দিয়ে।
বর্তমানের হ্যামেলিন শহরে যদি কখনো বেড়াতে যান তবে দেখবেন সেখানে বাঁশিওয়ালার মূর্তি, সাথে ইঁদুর।

হ্যামেলিন শহরে বাঁশিওয়ালার মূর্তি

২০০৯ সালে তারা এক টুরিস্ট ফেস্ট আয়োজন করে শিশুদের প্রস্থানের করুণ ঘটনার ৭২৫তম বার্ষিকীতে। যে বাড়িতে খোদাই করা ছিল ইতিহাসটি, সেটিকে এখন “র‍্যাট ক্যাচার” এর বাড়ি বলে। প্রতি বছর ২৬ জুন পালন করা হয় র‍্যাট ক্যাচার দিবস। আছে পাইড পাইপার থিম রেস্তোরাঁ, আছে পাইড পাইপার মনোপলি! বর্তমানে আমরা যে ভার্সন পড়ি পাঠ্য বইতে সেটা মূলত উপকথা শুনে গ্রিম ভাই-দের পুনর্লিখন। যে রাস্তায় শিশুদের শেষ দেখা গিয়েছিল, সে রাস্তার নাম Bungelosenstrasse (“ড্রাম ছাড়া রাস্তা”), সেখানে কোনো মিউজিক বাজানো নিষিদ্ধ!

হ্যামেলিনে চলছে উৎসব
টাউন হলে এ বাক্যগুলো লিখা ছিলঃ
“In the year 1284 after the birth of Christ
From Hameln were led away
One hundred thirty children, born at this place
Led away by a piper into a mountain.
বানানো হয় মুদ্রাও। আর বহু পরে বানানো মেইন গেটে খোদাই করা ছিল- “১৩০ শিশুকে জাদুকর নিয়ে যাবার ২৭২ বছর পর এই ফটক নির্মিত।” হ্যামেলিনের বাঁশিওয়ালাকে নিয়ে লিখা হয়েছে অনেক কবিতা, গল্প আর উপন্যাস, এমনকি ছায়াছবিও, অন্য দেশেও এর অনুকরণে রূপকথা চালু হয়ে যায়। কিন্ত হ্যামেলিনের বাঁশিওয়ালার রহস্য আজও অমীমাংসিত। কী হয়েছিল সেই ১৩০ শিশুর ভাগ্যে?

আজকের হ্যামেলিন! চলছে ক্রিসমাস।
তথ্যসূত্র
১) pitt.edu/~dash/hameln.html
২) ancient-origins.net/myths-legends/disturbing-true-story-pied-piper-hamelin-001969
৩) en.wikipedia.org/wiki/Pied_Piper_of_Hamelin
৪) theportalist.com/the-chilling-true-story-behind-the-pied-piper-of-hamelin
 
Copyright © বিডি.পয়সা ক্লিক,নিবন্ধিত ও সংরক্ষিত. মডিফাইঃ পিসি টীম, সার্ভার হোস্টেডঃ গুগল সার্ভিস